রাইস কুকারের দাম কত ২০২৪

shoppingprice
6 Min Read

যারা আজ রান্নাকে আরও সহজ করে তুলতে চান তাদের জন্য রাইস কুকার একটি অত্যন্ত প্রয়োজনীয় পণ্য। খুব অল্প সময়ের মধ্যে, আপনি কোনও প্রচেষ্টা ছাড়াই কয়েক মিনিটের মধ্যে আপনার রান্নার কাজটি সমাধান করতে পারেন। এই রাইস কুকারে সঠিক পরিমাণে জল এবং ভাত যোগ করুন; এটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে রান্নার প্রক্রিয়াটি সম্পূর্ণ করবে।

 

সেক্ষেত্রে শহর ছাড়া বাংলাদেশের সব গ্রামেই এখন এই বৈদ্যুতিক রাইস কুকার ব্যবহার করা হচ্ছে। তবে আপনি আপনার বাজেট এবং চাহিদার উপর নির্ভর করে বিভিন্ন কোম্পানির রাইস কুকার কিনতে পারেন। তবে রাইস কুকার কেনার আগে রাইস কুকারের দাম জেনে নেওয়া উচিত। জনপ্রিয় ওয়ালটন কোম্পানি সিঙ্গার সহ বিভিন্ন কোম্পানির রাইস কুকারের মূল্য তালিকা জানতে এই সম্পূর্ণ পোস্টটি পড়ুন।

 

একটি রাইস কুকারের দাম কত?

 

এই রাইস কুকারটি মূলত ভাত রান্নার জন্য ব্যবহৃত হয়। তাই আজকাল আপনার কাছে আরও ডিজিটাল রাইস কুকার থাকবে। সুতরাং, আপনি একটি স্বয়ংক্রিয় সিস্টেমে তৈরি একটি রাইস কুকার পাবেন। এটি খুব দ্রুত এবং খুব সহজ রান্না করে তোলে। ঠিক পরিমাণে জল এবং চাল যোগ করলে আপনার ভাত কয়েক মিনিটের মধ্যে রান্না হয়ে যাবে।

বাংলাদেশের বিভিন্ন কোম্পানির জনপ্রিয় রাইস কুকারের মূল্য তালিকা নিয়ে আজকের আলোচনা। যারা রাইস কুকার কিনতে চান তাদের এই নিবন্ধটি সম্পূর্ণ দেখতে হবে। আর যেকোন দোকান থেকে রাইস কুকার কেনার আগে এর দামটা ভালো করে বুঝে নিতে হবে। বিভিন্ন কোম্পানির রাইস কুকারের মূল্য তালিকা জানতে নীচের সম্পূর্ণ নিবন্ধটি পড়ুন।

 

কিয়াম রাইস কুকারের দাম কত?

 

আপনার রাইস কুকার কেনার বাজেট কম থাকলে, আপনি 2000 থেকে 2500 টাকায় একটি মানসম্পন্ন রাইস কুকার কিনতে পারেন। উদাহরণস্বরূপ, এই 1.8 লিটার KIAM রাইস কুকার ডিলাক্স ফুল বডি DJB-202 মডেলের দাম 2100 টাকা। আপনি কিম রাইস কুকার 3000 থেকে 3500 টাকায় কিনতে পারেন।

 

ওয়ালটন রাইস কুকারের দাম কত?

 

এই ওয়ালটন কোম্পানি বাংলাদেশের একটি জনপ্রিয় ব্র্যান্ড। ইলেকট্রনিক্স 15 থেকে শুরু করে বিভিন্ন ধরনের মৌলিক পণ্য তৈরি করে। এটি খুবই টেকসই এবং দীর্ঘস্থায়ী হলেও এই ওয়ালটন কোম্পানি দীর্ঘদিন ধরে রাইস কুকার উৎপাদন করে আসছে।

তাই আপনি বাংলাদেশের বাজারে 2500 টাকা থেকে 3000 টাকায় একটি ভালো মানের ওয়ালটন রাইস কুকার কিনতে পারেন। আর বাজেট যদি হয় চার থেকে পাঁচ হাজার টাকা, তাহলে কিনতে পারেন আরও ভালো মানের রাইস কুকার।

 

আরো জানুন- ওয়ালটন চার্জার ফ্যানের দাম ২০২৪

 

ভিশন রাইস কুকারের দাম কত?

বাংলাদেশের আরেকটি অত্যন্ত জনপ্রিয় এবং সুপরিচিত কোম্পানি হল ভিশন কোম্পানি। সুতরাং, আপনি যদি একটি দুর্দান্ত রাইস কুকার কিনতে চান তবে আপনি এটি অফিসিয়াল ওয়েবসাইট থেকে অর্ডার করতে পারেন। আপনি কিছু ডিসকাউন্ট এবং ডিসকাউন্ট পেতে পারেন. তবে দৃষ্টি রাইস কুকারের সর্বনিম্ন দাম ২৫০০ থেকে ২৭০০ টাকা। আর সর্বোচ্চ ৩৫০০ থেকে ৫ হাজার টাকা।

 

সিঙ্গার রাইস কুকারের দাম কত?

 

সিঙ্গার বাংলাদেশ লিমিটেড, বাংলাদেশের অন্যতম জনপ্রিয় কোম্পানি, বাংলাদেশের একটি সেলাই মেশিন প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান। 1905 সালে, সিঙ্গার বাংলাদেশের প্রথম অপারেশন শুরু হয়। আজ পর্যন্ত, এই কোম্পানির অস্তিত্ব খুব স্থিতিশীল। আপনি যদি এই কোম্পানির রাইস কুকার কিনতে চান তবে আপনি এটি সর্বনিম্ন 2700 থেকে 3000 টাকা দামে কিনতে পারেন। আর এই সিঙ্গার রাইস কুকারের সর্বোচ্চ দাম হবে ৫ হাজার টাকা বা তার বেশি।

 

একটি নোভা রাইস কুকারের দাম কত?

 

এই নোভা বাংলাদেশের একটি জনপ্রিয় ব্যান্ড। আপনি খুব কম দামে একটি মানের নোভা রাইস কুকার কিনতে পারেন। নোভা কুকার বাংলাদেশের মানুষ খুব পরিচিত। কেউ যদি কোয়া নোভা রাইস কুকার কিনতে চান, তিনি সর্বনিম্ন 1900 থেকে 2000 টাকা দামে কিনতে পারেন। বাজেট একটু বেশি হলে মানসম্পন্ন নোভা রাইস কুকারও কিনতে পারেন, অর্থাৎ 3500 থেকে 4000 টাকা।

 

মিয়াকো রাইস কুকারের দাম কত?

 

আপনি চাইলে কিনতে পারেন দীর্ঘস্থায়ী ও উন্নতমানের রাইস কুকার। তারপর অবশ্যই আপনার স্থানীয় দোকান থেকে মিয়াকো রাইস কুকার কিনুন। তবে আপনি এই রাইস কুকারটি অনলাইনেও কিনতে পারেন। উদাহরণস্বরূপ, আপনি জনপ্রিয় এবং নির্ভরযোগ্য অনলাইন অ্যাপ Daraz থেকে মানসম্পন্ন রাইস কুকার পাবেন।

তবে মিয়াকো রাইস কুকারের দাম সর্বনিম্ন 3000 থেকে 3500 টাকা। তবে মিয়াকো আর রাইস কুকারের মডেলের উপর নির্ভর করে দামের তারতম্য হতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, 3.6 লিটার মিয়াকো রাইস কুকার ASL-702 এর বর্তমান বাজার মূল্য 4600 টাকা। তাই মিয়াকো রাইস কুকার পাবেন সর্বোচ্চ ৫ হাজার টাকায়।

 

এলজি রাইস কুকারের দাম কত?

 

আপনি লিটার ভিত্তিতে এই সমস্ত কোম্পানি থেকে রাইস কুকার কিনতে পারেন। উদাহরণস্বরূপ, আপনি বাজারে 1.8 লিটার এলজি রাইস কুকার পাবেন। আপনি একটি 3.2 লিটার রাইস কুকারও পাবেন। তাই এলজি রাইস কুকারের সর্বনিম্ন দাম 900 থেকে 2500 টাকা। আপনি যদি সর্বোচ্চ বাজেট বজায় রাখেন তবে আপনি 3500 থেকে 5000 টাকার মধ্যে মানসম্পন্ন এলজি রাইস কুকার পাবেন।

 

ভালো মানের রাইস কুকার কোনটি?

 

যেহেতু বাংলাদেশে বিভিন্ন রাইস কুকিং কোম্পানি রয়েছে। এই ক্ষেত্রে, বৈশিষ্ট্য এবং কার্যকারিতা বেশ ভিন্ন। সুতরাং, আপনি যদি রাইস কুকারটি দীর্ঘ সময় ধরে ব্যবহার করতে চান তবে আপনার অবশ্যই একটি ভাল কোম্পানি থেকে একটি মানসম্পন্ন রাইস কুকার কেনা উচিত।

তবে বাংলাদেশভিত্তিক ওয়ালটন রাইস কুকার, মিয়াকো রাইস কুকার অনেক ভালো। অন্যান্য উল্লেখযোগ্য কোম্পানির মধ্যে রয়েছে শিমিজু রাইস কুকার, প্যানাসনিক রাইস কুকার, এলজি রাইস কুকার এবং নোভা রাইস কুকার।

 

শেষ কথা

আমাদের আজকের কথোপকথনে, আমরা আপনাকে রাইস কুকারের দাম সম্পর্কে বিস্তারিত জানানোর চেষ্টা করেছি। আমি আশা করি আপনি এই বিষয় সম্পর্কে একটি বিস্তারিত ধারণা আছে. কিন্তু এসব পণ্য ভালো দামে দোকান থেকে কিনতে হবে। আপনি যদি এই নিবন্ধটি দরকারী মনে করেন, অন্যদের সাথে শেয়ার করুন. ধন্যবাদ

1 Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *